বৃহস্পতিবার, ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গজারিয়ায় নির্বাচনে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ, গোলাগুলি , আহত ১৫

প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
মে ৮, ২০২৪ ৭:১৫ অপরাহ্ণ

Loading

নিজস্ব প্রতিবেদক :
মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বুধবার আমিরুল ইসলাম (আনারস) ও মনসুর আহমেদ খান জিন্নাহ (কাপ পিরিচ) দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী সর্মথক ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলি, পুলিশের গাড়ি ভাংচুর ও ব্যালট পেপারে সিল মারার ঘটনা ঘটেছে। এসময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে । সংঘর্ষে পুলিশ, সাংবাদিকসহ কমপক্ষে ১০/১৫ জন আহত হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানাযায়, হোসেন্দি ইউনিয়নের ইসমানিরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দুপুর ১ টার দিকে আনারস ও কাপপিরিচ মার্কার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ ও গুলির ঘটনা ঘটলে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৪/৫ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুরে। এই সময় ৪/৫ জন ছররা গুলিতে আহত হয়। আহতরা স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা গ্রহন করেছেন। এদিকে দুপুর ২ টার দিকে হোসেন্দি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে আনারস প্রতিকের পক্ষের সমর্থকরা জোরপুর্বক ব্যালট পেপারে সিল মারতে শুরু করলে পুলিশ এসে বাধা দেয়। এসময় পুলিশের সঙ্গে আনারস সমর্থকদের সংঘর্ষ হয়। পরে ঘটনাস্থল থেকে বেশ কিছু নষ্ট ব্যালট পেপার উদ্ধার করা হয়। এই সময় প্রায় ১ ঘন্টার মত ভোট গ্রহন বন্ধ ছিল। বিকেল সাড়ে ৩ টায় একই কেন্দ্র আবার দ্বিতীয় দফা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলে পুলিশ ও আনারস প্রতিকের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এখানে আনারস প্রতিকের সমর্থকরা পুলিশের গাড়ি ভাংচুর করে। পরিস্থিত নিয়ন্ত্রণে আনতে রাবার বুলেট ও টিয়ার সেল নিক্ষেপ পুলিশ। এই সময় ২ পুলিশ সদস্যের মাথা ফেটে গেলে আহত হয়। তাদের কে গজারিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়। বেলা ১১টার দিকে গজারিয়া ইউনিয়নের ফুলদি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে কাপপিরিচ মার্কার সমর্থক ৯ নাম্বার ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার দানেশ (৬০) কে মারধর করলে আনারস ও কাপপিরিচের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এর আগে হোসেন্দি ইউনিয়নের ভবানিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক পুলিশ সদস্যকে আনারস মার্কার সমর্থক মারধর করলে এই চিত্র ধারণ করার সময় মানবজমিনের মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি গুলজার হোসেনকে ব্যাপক মারধর করে। তাকে উদ্ধার করতে অপর সাংবাদকরা গেলে তাদেরও লান্ছিত করা হয়।
এ ব্যাপারে গজারিয়া থানার ওসি মো.রাজিব খান জানান, এই ঘটনায় আমাদের ২ পুলিশ সদস্য আহত হয়। এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে। তবে পুলিশ কত রাউন্ড গুলি ছুরেছে এখনো হিসাব করা হয়নি। এইসব ঘটনায় কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।
জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও গজারিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. বশির আহমেদ জানান, কিছু ছোটখাটো ঘটনা ছাড়া সার্বিক পরিস্থিতে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। তবে হোসেন্দি বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে কিছু ব্যালট পেপারে জোরকরে সিল মারলে সেই ব্যালট পেপার শনাক্ত করে বাতিল করা হয়। তবে ওই কেন্দ্রে কিছু সময়ের ভোট গ্রহণ স্থগিত ছিল।

সর্বশেষ - মুন্সিগঞ্জ

আপনার জন্য নির্বাচিত